ফেসবুকে ‘রিলেশনশিপ স্টেটাস’ দেওয়ার ক্ষেত্রে করণীয়

0
47

এখন সব কিছুই সোশ্যাল মিডিয়া নির্ভর। ব্যক্তিগত জীবনের নানা খুঁটিনাটি সোশ্যাল মিডিয়ায় দেওয়া অনেকেরই অভ্যাস। এই অভ্যাস সবটাই যে খারাপ, এমনটা নয়। কিন্তু কোনও কিছুরই বেশি বাড়াবাড়ি হওয়া ভাল না। আর সেই জন্যই কখনও সেলফি তুলতে গিয়ে, কখনও ফেসবুকে বন্ধুত্ব করে ফেঁসে যাচ্ছে এই প্রজন্ম।

কিন্তু এসব এড়িয়েও ফেসবুকে নিজের সম্পর্কের কথা জানানোর উপায় রয়েছে। কয়েকটি পদক্ষেপ মাথায় রাখলেই ঝামেলা তো থাকবেই না, বরং ব্যাপারটি মজাদার হবে। আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনে সেই বিষয়ে রইলো স্বল্প বিস্তর আলোচনা-

১। অন্যের সঙ্গে ছবি-

ফেসবুকে আপনার সঙ্গীর সঙ্গে ছবি দিলে যদি গোলমাল হবার সম্ভাবনা থাকে তাহলে অন্য কোনও মহিলা বা পুরুষের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছবি দিন। সেই ছবি দেখে যাতে মনে হয় আপনি বুঝি তাঁর সঙ্গেই সম্পর্কে রয়েছে। এরপর প্রেমিক বা প্রেমিকার সঙ্গে ছবি দিলেও লোকে দেখবে না। বরং ওদিকেই নজর থাকবে বেশি। এই কাণ্ড ঘটানোর আগে অবশ্য আপনার সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলে নেওয়া দরকার।

২। জানানোর প্রথম পদক্ষেপ-

প্রথমে ইনস্টাগ্রামে ছবি দিন। সেখানে ফেসবুকের থেকে লোকসংখ্যা কম। তাই অসুবিধার কিছু নেই। সেখানে আপনার সঙ্গীকে ট্যাগ করে দিন। কিছু লোক আগে জানুক আপনাদের সম্পর্কের কথা। এই বিষয়ে আদর্শ উদারহণ বলিউডের অভিনেত্রী সোনম কাপুর।

৩। সম্পর্ক দৃঢ় হলে-

সম্পর্কের বাঁধন আর একটু দৃঢ় হলে দুই জনের হাতের বা আঙুলে ক্লোজ ছবি দিন। যাতে মুখ দেখা না যায়। এই পোস্টটি অবশ্যই ফেসবুকে করুন। সেখানে লোকে বুঝতে পারুক যে আপনি সম্পর্কে আছেন। দেখুন লোকের প্রতিক্রিয়া। বুঝতে চেষ্টা করুন, পরিবারের সদস্যরা কী বলছেন।

৪। পরিবারের সঙ্গে-

প্রথমেই মা-‌বাবানন, প্রথমে ভাই বা বোনের সঙ্গে পরিচয় করান আপনার সঙ্গীকে। তাদের সঙ্গে বেড়াতে যান, রেস্তোরাঁয় খাওয়া বা সিনেমা দেখাও চলতে পারে। সেখানে সেলফি তুলে পোস্ট করেদিন ফেসবুকে। এতজনের মাঝে আলাদা করে আপনি আর আপনার সঙ্গীকে চেনা যাবে ঠিকই, কিন্তু লোকে এটাও বুঝে যাবে, পরিবারের লোকেও আপনার সঙ্গীকে ভালোমনে মেনে নিয়েছেন।

৫। চূড়ান্ত-

শেষ থাকেন মা-‌বাবা। তাদেরকে নিয়ে এবার একটা ফ্যামিলি ফটো তুলে নিয়ে পোস্ট করেদিন ফেসবুকে। সেখানে হ্যাপি ফ্রেমে ধরা থাকবেন আপনারা। আর সেই ছবিটা দিয়েই ফেসবুকে রিলেশনশিপ স্টেটাস দিন। দেখবেন, বিষয়টা একেবারে সিনেমার মতো হবে।