৮ উইকেট নিয়ে ইতিহাস ইয়াসিরের

0
65

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে এর আগে খেলেছিলেন মাত্র তিনটি ম্যাচ। লিস্ট তে অভিজ্ঞতা মাত্র দুই ম্যাচের, এই মৌসুমে একবার মাত্র মাঠে নেমেছেন।

১৯ বছর বয়সী এই ইয়াসির আরাফাতই মাঠে নেমে ইতিহাস গড়ে ফেললেন। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটারসের আজ ফতুল্লায় নেমে নিয়েছেন ৪০ রানে ৮ উইকেট। লিস্ট এ তে বাংলাদেশের কারও আট উইকেট নেওয়ার কীর্তি এটাই প্রথম।

ফতুল্লায় ইয়াসিরের তোপে আবাহনী পড়ে প্রথম ওভার থেকেই। ১২ রানে সাইফ হাসানকে ফিরিয়ে ধ্বংসযজ্ঞের শুরুটা করেছিলেন ইয়াসির। কে জানত, সেই ১২ রানেই এভাবে পা হড়কাবে আবাহনী? এরপর স্কোরবোর্ডে কোনো রান না ওঠার আগেই চারটি উইকেট হারায় আবাহনী।

এনামুল হক বিজয় আউট হয়েছেন ১০ রানে, নাজমুল হোসেন শান্ত ও নাসির হোসেন ফিরে গেছেন কোনো রান না করেই। কোনো রান করতে পারেননি মোসাদ্দেক হোসেন। বিনা উইকেটে ১২ রান থেকে আবাহনী হয়ে পড়ে ৫ উইকেটে ১২ রান। এর মধ্যে চারটি উইকেটই নিয়েছেন ইয়াসির।

এরপর মোহাম্মদ মিঠুন ও ভারতের মনন শর্মা মিলে বিপর্যয়টা সামাল দেওয়ার একটু চেষ্টা করেছিলেন। ষষ্ঠ উইকেটে দুজন মিলে যোগ করেছেন ৫৩ রান, মিঠুনকে ৪০ রানে ফিরিয়ে দেন টিপু সুলতান। মনন শর্মা এরপর মাশরাফি বিন মুর্তজাকে নিয়ে আরও ২৮ রান যোগ করেছিলেন।

কিন্তু ৯৩ রানে মাশরাফির আউটের সাথেই আবার মড়ক লাগা শুরু হয়, সেই ৯৩ রানেই আবাহনী হারায় আরও ৩ উইকেট। সন্দীপ রায়কে নিয়ে এরপর ১০০ পার করেন মনন, শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে তাঁকে ফিরিয়ে দিয়েছেন ইয়াসিরই।

নিজের নামের পাশে তখন যোগ হয়ে গেছে ৮ উইকেট। ১১৩ রানে অলআউট হয়ে গেছে আবাহনী, সেই রান তাড়া করে ৪৮ রানে দুই উইকেট হারিয়েছে গাজী। লিস্ট এ তে এর আগে ৮ উইকেট পেয়েছিলেন বা

অথচ ১৯ বছর বয়সী এই ইয়াসির লিস্ট এ তে এর আগে মাত্র দুই ম্যাচ খেলে পেয়েছিলেন ১ উইকেট। তবে প্রথম শ্রেণীর অভিষেকটা ছিল মনে রাখার মতো দুই বছর আগে চট্টগ্রামের হয়ে নিজের প্রথম ম্যাচেই ৫ উইকেট নিয়ে হয়েছিলেন ম্যাচসেরা।

এরপর বলতে গেলে হারিয়েই গিয়েছিলেন। কে জানত, আবার ফিরে আসবেন এভাবে?